দাগনভূঞা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মামুনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি’র মামলা

অক্টোবর ১৫, ২০১৫ ০৪:১০:অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
দাগনভূঞা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন মামুনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি ছবি তোলার অভিযোগে মামলা করেছে এক নির্যাতিতা নারী। জেলা ও দায়রা জজ দেওয়ান মো: সফিউল্লাহ মামলাটি আমলে নিয়ে আদালতের এজলাশে কিশোরির বক্তব্য গ্রহন করে মঙ্গলবার তদন্ত প্রতিবেদনের আদেশ দেন।

মামলার বিবরনে জানা যায়, দাগনভূঞা উপজেলার লতিফপুর গ্রামের বহুল আলোচিত মা-মেয়ে ধর্ষন মামলায় ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন মামুন ধর্ষনের অভিযোগ থেকে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপে বাদপড়ার অভিযোগ এনে ন্যায় বিচারের দাবীতে নির্যাতিত নারী গত ১২ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রী ও বিচার বিভাগের সহযোগিতা কামনা করেন। এ খবর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় গত ৬ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টায় মামুনের নেতৃত্বে ৭-৮জন সন্ত্রাসী নির্যাতিত পরিবারটির ভাড়া করা ফেনী শহরের পুলিশ কোয়ার্টারের বাসায় হানা দেয়।

মামুনের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ সস্ত্রাসীরা কিশোরীকে বাসায় একা পেয়ে তার কক্ষে প্রবেশ করে তাকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে সস্ত্রাসীরা তার হাত-পা ধরে রাখে মামুন তাকে বিবস্ত্র করে মোবাইল ফোনে ছবি তুলে ও ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। এসময় কিশোরীর ভাই এসে পৌছলে সন্ত্রাসীরা তাকে পিটিয়ে আহত করে একটি কক্ষে আটকে রাখে। ধর্ষিতা কিশোরীর মা ঘরে এসে পৌছলে সস্ত্রাসীরা তার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে কক্ষ ত্যাগ করে। এ ঘটনার বিচার প্রার্থনা করে থানায় মামলা দায়ের করতে চাইলে পুলিশ মামলা না নেওয়ায় সোমবার কিশোরী ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল আদালত-১ এ মামলা দায়ের করে।
এ ব্যাপারে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন মামুন মামলা দায়েরের বিষয়টি শুনেছেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। এর বেশি তিনি কিছু বলতে রাজি হননি।

Related Post