নোয়াখালীর ডাক বিভাগের বেহাল দশা

জুলাই ০৯, ২০১৬ ১২:০৭:পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নোয়াখালী ডাক বিভাগের বেহাল দশা। জেলা ডাক অফিসে চিঠি আসার পর দিনের পর দিন পড়ে থাকে। যথাসময়ে প্রাপকের হাতে পৌছেনা। এতে স্থানীয়রা বড় ধরনের সমস্যার সমুখিখন হচ্ছেন। অনেকে চাকরী পরীক্ষা বা ইন্টারভিউতে যথাসময়ে পৌছাতে পারেননা। এ নিয়ে গত ২৩ জুন ভুক্তভোগীরা ডাক বিভাগের তালিয়ে লাগিয়ে বিক্ষোভ করে। এ সময় জেলা ডাক পোস্টমাস্টারকে লাঞ্চিত করেন ভুক্তভোগীরা।

ভুক্তভোগী ইব্রাহিম খলিল অভিযোগ করেন, নোয়াখালী প্রধান ডাক ঘরের কর্মচারী অবহেলায় তার দুই ছেলে চাকরী পরীক্ষা দিতে পারেনি। তিনি জানান, বাংলাদেশ কাস্টম হাউস ‘সিপাই পদে’ আবেদন করেন ইব্রাহিম খলিল এর দুই ছেলে সৈয়দ মো: রবিউল হোসেন ও সৈয়দ মো: মারুফ হোসেন। কাস্টম হাউজ থেকে জুন মাসের ২ তারিখে পরীক্ষা দেয়ার দুইটি চিঠি নোয়াখালী প্রধান ডাকঘরে পৌছালে প্রাপককে সঠিক সময়ে পৌছানো হয়নি। মূলত ২৩ দিন পর প্রাপক চিঠি হাতে পাওয়ার দেখতে পারেন পরীক্ষা দেয়ার সময় শেষ। চিঠি হাতে পাওয়ার দুই আগে চাকরী প্রার্থী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েগেছে। এতে বড় ধরণের ক্ষতির সমুখ্খিন হয়েছেন বলে তিনি দাবী করেন।

নোয়াখালী প্রধান ডাকঘরের পোষ্টমাস্টার সহিদুর রহমান অভিযোগ বিষয়ে জানান, লোকবলের অভাবে মাঝে মাঝে কিছু চিঠি গ্রাহকের কাছে পৌছাতে দুয়েক দিন দেরী হয়। তবে দুই চাকরী প্রার্থীর চিঠি পৌছাতে অসাভাবিক দেরী হয়েছে। এজন্য চিঠি আমরা তাদের কাছে ক্ষমা চেয়েছি। ভবিষতে এ ধরনের সমস্যা না হয়, সে বিষয়ে আমরা চেষ্টা করবো।

Related Post