প্রবাসটা আমার কাছে এখনো প্রবাস-ই

জুলাই ১৮, ২০১৫ ০৩:০৭:পূর্বাহ্ণ

ছালা উদ্দিন জাহিদ, (লন্ডন, ১৭ জুলাই, ২০১৫)

ঈদ মানেই রমজানের শুরু থেকেই চারআনা, আটআনা, বারোআনা, পাঁচসিয়া,….এভাবে করেই টাকা জমানো ঈদের দিন খরছের জন্য আর এই জমানো টাকা দিয়ে ঈদের আগের দিন সন্ধ্যায় চাঁদ রাতে বাজারে গিয়ে জামা ইস্ত্রি করানো এবং বাজার থেকে আসার সময় আপুর জন্য একটাকার চুলের ক্লিপ,চুল বাঁধার জন্য একটাকার রাবার,তিনটাকা দামের চুলের ব্যান্ড/বেকি,একটাকার দামের এব্রু কিনে আনা !

ঈদ মানেই জুনিয়র/হাই স্কুলে থাকতে ঈদের ১৫ দিন আগে রেজিষ্ট্রি ডাকে চিঠি পাঠানো হতো ভাইয়ার কাছে। চিঠিতে লিখা থাকবে চামড়া জুতোর সাইজ কতো, জিন্‌সের প্যান্টের সাইজ, শার্টের সাইজ; সাথে পায়জামা-পাঞ্জাবীর মাপ ! ঈদ মানে ঈদের ২/৩ দিন আগে ঈদের ছুটিতে ভাইয়া কখন ঢাকা থেকে বাড়িতে আসবে! আমার জন্য কি আনবে ! সেই অপেক্ষায় থাকতাম! এখনো পর্যন্ত ভাইয়ের পছন্দের কেনা শার্ট টা আমার কাছে সেরা মনে হয়!

প্রবাসটা আমার কাছে এখনো প্রবাস-ই। প্রবাসে থেকে শৈশব-কৈশরের এইসকল স্মৃতি বিজড়িত আনন্দঘন মুহুর্তগুলো ক্ষণে ক্ষণে অনেক নাড়া দেয়! এখন আল্লাহ্‌র রহমতে বা আল্লাহ্‌ সেই তওফিক দিয়াছে যে, যখন যেটা মন চায় সেটা ক্রয় করার মতো সেই সামর্থ্য আল্লাহ্‌ দিয়াছেন। কিন্তু সেই দিন গুলোর মতো এখন আর ঐরকম তৃপ্তি পাইনা। আমার কোনো ফ্যামিলি পিছুটান নেই।তবে এখন প্রবাস থেকে আত্নীয়-স্বজন সবার জন্য ঈদের সেলামী পাঠায়।কিন্তু তাতে কি তারা সন্তুষ্ট হয়? বা আমরা প্রবাস থেকে যেভাবে অনুভব করি, আসলে কি দেশের মানুষ সেইভাবে আমাদের অনুভব করে?…মনে হয় না; চারোদিকে শুধু হাহাকার, অভাব আর অভাব। জামাই বিদেশ থেকে পাঠাচ্ছে, ভাই/বাপ বিদেশ থেকে পাঠাচ্ছে;কিন্তু তাতেও হয়না; নাই নাই আর নাই, শুধু কষ্ট আর কষ্ট।বাস্তবতা হচ্ছে দেশের মানুষ অনেক কষ্টে আছে, অনেক অভাবে আছে। যাইহোকনা কেনো, তবুও আমরা ভালোবাসি আমাদের নাড়ী-ভুড়ির সম্পর্ক আমাদের দেশকে। এই ভালোবাসা হচ্ছে সম্পূর্ণ ফরমালিন মুক্ত ভালোবাসা।

লেখক: ছাত্র, Anglia Ruskin University

বাংলাদেশ: মুছাপুর, কোম্পানীগঞ্জ, নোয়াখালী।

Related Post