ফেনীতে ইয়াবাসহ পুলিশ কর্মকর্তা আটক: আরো পুলিশ কর্মকর্তা জড়িত থাকার স্বীকার

জুন ২৪, ২০১৫ ১২:০৬:পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
ফেনীতে ৭ লাখ ইয়াবা নিয়ে এক পুলিশ সদস্যসহ দুই জনকে আটক করেছে র‌্যাব। ইয়াবাসহ আটককৃত উপ-সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) মাহফুজুর রহমান পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মরত রয়েছে। এসময় এসময় একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়েছে। চালক জাবেদ আলীকেও আটক করেছে।
 
র‌্যাব ৭ এর পরিচালক লে. কর্ণেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ জানান, শনিবার রাতে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের লালপোল এলাকায় দ্রুতগামী একটি কালো রঙের ‘এলিয়ান’ প্রাইভেট কার (ঢাকা মেট্টো গ-১৭-৭১৮১) একটি শিশুকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে। এসময় র‌্যাব সদস্যরা সেই প্রাইভেট কারটিকে ধাওয়া করে আটক করে। র‌্যাব গাড়িটিতে তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করে।
 
র‌্যাব জানায়, জব্দকৃত ইয়াবা ট্যবলেটের ৬৮ বক্সে ৬ লাখ ৮০ হাজার ইয়াবা রয়েছে। ইয়াবার সাথে মাদক বিক্রির নগদ ৭ লাখ টাকা, ৪টি মোবাইল ফোন সেট ও বিভিন্ন ব্যাংকের ৮টি ক্রেডিট কার্ড উদ্বার করা হয়। জব্দকৃত ইয়াবার আনুমানিক মূল্যে ২৭ কোটি ২০ লাখ টাকা। ইয়াবাসহ আটক এএসআই মাহফুজুর রহমান পুলিশের বিশেষ বিভাগ (এসবি) ঢাকা টেকনিক্যাল সেকশনে (বিপি নং ৮০০১০৬৩১১৯, এসবি আইডি নং-৭৭৮৫) কর্মরত। র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে আটক মাহফুজ জানিয়েছে ‘২০১১-২০১৩ সালে কক্সবাজার জেলার টেকনাফে চাকুরি করার সময় ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সাথে তার সখ্যতা হয়।’
 
আটক মাহফুজ র‌্যাবকে আরো জানিয়েছে, ‘কক্সবাজার থেকে আনা ৬ লাখ ৮০ হাজার পিস ইয়াবার চালানটি ঢাকায় পৌছে দিতে কক্সবাজার গোয়েন্দা পুলিশের এএসআই মো. বেলাল ও চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের কুমিরা পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই মো. আশিক সহযোগিতা করেছে।’ সে আরো জানায়, ‘ঢাকায় তার কাছ থেকে ইয়াবাগুলো হাইকোর্টের মুহুরী মো. মোতালেব, এ্যাডভোকেট জাকির, এসবি কনষ্টবল শাহীন, কাশেম, গিয়াসদের বুঝে নেয়ার কথা।’ 
 
আটককৃত এএসআই মো. মাহফুজুর রহমান কুমিল্লা জেলার ব্রাক্ষনপাড়া থানার মিরপুর এলাকার জামশেদ মিয়ার ছেলে। চালক মো. জাবেদ আলী ব্রাক্ষণবাড়ীয়া জেলার ব্রাক্ষণবাড়ীয়া সদর থানার বাদুগড় এলাকার ওমর আলী ভূইয়ার ছেলে।
 
চট্রগ্রাম র‌্যাব-৭ প্রধান কার্যলয়ে সংবাদ সম্মেলন কওে এ তথ্য জানানো হলেও উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে আটককৃত পুলিশসহ চালককে হাজির করেনি র‌্যাব-৭। এ ঘটনায় গাড়ির মালিক পুলিশের এএসআই মাফুজুর রহমান ও চালক জাবেদ আলীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে। র‌্যাব মাহফুজের নোট বুকে ১৪ জনের সাথে বিভিন্ন সময়ে ইয়াবা লেনদেনের ২৮ কোটি ৪৪ লক্ষ ১৩ হাজার টাকার হিসাব পেয়েছে।  
 
 

Related Post