লক্ষ্মীপুরে পুলিশের সঙ্গে তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধে আলমগীর নিহত

আগস্ট ০৯, ২০১৬ ১২:০৮:অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধে আলমগীর (৩০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ সময় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুকসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ লোকমান হোসেনের দাবী, উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ রায়পুর গ্রামের একটি সুপারি বাগানে রাত ২টার দিকে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এমন সংবাদের ভিত্তিতে ওই এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় পুলিশর উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পুলিশের উপর গুলি ছোড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়। এতে আলমগীর গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে আবস্থার অবনতি হলে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার ভোরে মারা যান তিনি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। আলমগীর একই এলাকার মৃত লেদা মিয়ার ছেলে।

ওসি জানান, এ ঘটনায় আহত হন চার পুলিশ সদস্য। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন- পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক হোসেন (৩৫), পুলিশ সদস্য সফিক (৪২), কমর (৩২) ও ওহিদ (৩৫)। তাদেরকে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশী বন্দুক ও তিন রাউন্ড গুলি, বিভিন্ন দেশি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। আলমগীরের বিরুদ্ধে থানায় সাতটি মামলা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ক্রসফায়ার বা বন্দুকযুদ্ধে ঘটনা মানবাধিকার সংগঠনের কাছে প্রশ্নবৃদ্ধ। অতীতের বেশ কয়েকটি ক্রসফায়ারের হত্যার ঘটনার সঙ্গে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর বক্তব্যের সঙ্গে বাস্তবে মিল খুজে পাওয়া যায়নি।

Related Post