লক্ষ্মীপুরে ১ মাসে ৬ খুন : মহিলা ও শিশুর লাশ উদ্ধার

জুন ১৪, ২০১৬ ১১:০৬:পূর্বাহ্ণ

marder
নিজস্ব প্রতিবেদক:
লক্ষ্মীপুরে আবারো জোড়া খুনের ঘটনা ঘটেছে। রোববার বিকালে সদর উপজেলার কুশাখালী ইউনিয়নের পুকুরদিয়া নলডগি গ্রাম থেকে নিহত নারী ও শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ। হত্যাকান্ডের শিকার ধারনা করা হচ্ছে হতভাগ্য নারী ও শিশু মা ও ছেলে হতে পারে। লাশ দুটির গলা কাটা হওয়ায় স্থানীয়রা তাৎক্ষণিক পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি। এ নিয়ে গত এক মাসে ৬ টি খুনের ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ জানান, উদ্ধারকৃত মৃত ব্যক্তি মহিলার বয়স ৩৮ ও শিশুর বয়স ১৩ বছর হবে। তবে ধারনা করা হচ্ছে নিহত দুজন মা-ছেলে হতে পারে। শনিবার রাতের যে কোন সময় তাদের দুইজনকে গলাকেটে হত্যা করে লাশ খালে ফেলে পালিয়ে দুর্বৃত্তরা।
স্থানীয়রা জানান, গত ২৫ মে বুধবার দুপুরে সদর উপজেলার বশিকপুর এলাকায় সহদোর ইব্রাহিম হোসেন রতন ও ইছমাইল হোসেন চৌধুরী নামের দু’ভাইকে গুলি করে হত্যা করে র্দুবৃত্তরা। সেই খুনের ঘটনার কিনারা না হতেই আবার রোববারের নারী ও শিশুসহ জোড়া হত্যাকান্ড সাধারণ মানুষকে আতংকিত করেছে। এর আগেও ২৯ মে উপজেলার বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নে রাজিবপুর গ্রামে আ’লীগের দুই কর্মীকে রাজিবপুর গ্রামের মৃত সেকান্তর মিয়ার ছেলে ইসমাইল হোসেন মানিক ও শামছুল করিমের ছেলে কামরুল ইসলামকে গুলি ও কুপিযে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ পর্যন্ত তিনটি হত্যা কান্ডই জোড়া খুনের ঘটনা হয়েছে। একের পর এক হত্যা জোড়া হত্যার ঘটনায় হত্যারকারীদের সনাক্ত করে দ্রুত বিচার দাবী জানিয়েছেন তারা।
রোববারের জোড়া খুন সম্পর্কে চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একে এম আজিজুর রহমান মিয়া জানান, রোববার দুপুরে কুশাখালী ইউনিয়নের পুকুরদিয়া নলডগি হোঁয়াখালী খালে অজ্ঞাত পরিচয়ে এক মহিলার গলাকাটা লাশ ভাসতে দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। এর কিছুক্ষন পর একই খালে অদূরে অপর ছেলের গলাকাটা লাশ ভাসতে দেখা যায়। পরে পুলিশ গিয়ে বিকেলে ঘটনাস্থলে গলাকাটা এক নারীসহ শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠান। নিহত দুইজন মা ও ছেলে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। তবে কি কারণে তাদেরকে হত্যা করা হয়েছে। কারা এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সে বিষয়ে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এছাড়া তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

Related Post