সেনবাগে ছাত্রলীগের হামলায় ৪ সাংবাদিক আহত

জুলাই ৩০, ২০১৫ ০৬:০৭:অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

নোয়াখালীর সেনবাগে ছাত্রলীগের হামলায় ৪ সংবাদকর্মী আহত হয়েছেন। বুধবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে পৌর শহরের কলেজ গেটে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহতদের প্রথমে সেনবাগে এবং পরে চৌমুহনীতে চিকিৎসা দেয়া হয়।
আহতরা হলেন, ৭১ টিভির নোয়াখালী প্রতিনিধি মিজানুর রহমান ও ক্যামেরাপারসন জয় ভূঁইয়া, এশিয়ান টিভির নোয়াখালী প্রতিনিধি তাজুল ইসলাম মানিক ভূঁইয়া ও ক্যামেরাপারসন অনুপ শিং।

জানা গেছে, বিকাল পাঁচটার দিকে সেনবাগ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে স্থানীয় এমপি মোরশেদ আলমের গ্রুপ ও পৌর মেয়র আবু জাফর টিপুর গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় তারা প্রায় দুই ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে। সংঘর্ষ ও সড়ক অবরোধের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে  হামলার শিকার হন ওই চার সংবাদকর্মী। তাদের ব্যবহৃত সিএনজিচালিত অটোরিকশাটিও ভাঙচুর করা হয়।

এ ব্যাপারে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে মোরশেদ আলম জানান, সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনা দু:খজনক। হামলার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সেনবাগ উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি নিয়ে গত তিন-চার দিন ধরে পাল্টাপাল্টি কমিটির পক্ষে-বিপক্ষে সড়ক অবরোধ করছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বুধবারও একই ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে বেগমগঞ্জ সার্কেল (এএসপি) হাছান ইমাম ও সেনবাগ থানার ওসি মোস্তফা কামাল, ডিবি ওসি আতাউর রহমান ভূঁইয়া ঘটনাস্থলে পৌঁছে নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন।

প্রসঙ্গত, ১৯ জুলাই রোববার ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ থেকে তৎকালীন সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম স্বাক্ষরিত একটি প্যাডে আগামী এক বছরের জন্য সেনবাগ উপজেলায় ছাত্রলীগের সভাপতি ফিরোজ আলম রিগান ও সাধারণ সম্পাদক মাজেদুল ইসলাম তানভীর বলে লিখিতভাবে জানানো হয়। এ কমিটি নিয়ে ২২ জুলাই বিকালে সেনবাগ বাজারে নবগঠিত কমিটি ও সাবেক কমিটির নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। কমিটি নিয়ে এখনো উত্তেজনা

Related Post