সোনাইমুড়ীতে অস্রসহ ডাকাত আটক

জুন ২৫, ২০১৫ ০৫:০৬:অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার আমিশাপাড়া ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে ফয়েজ উদ্দিন নামের এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে একটি এলজি, দুই রাউন্ড গুলি ও দু’টি ছোরা উদ্ধার করা হয়।

বুধবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে ইউপির ভদ্রগাঁও গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত ফয়েজ উদ্দিন (২৫) ওই গ্রামের মো. নূর আলমের ছেলে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায়,  গত ছয় মাসে তিন ইউপিতে ৩টি খুন, ৬টি ডাকাতি প্রায় ২৫টি ছিনতাই, ৩টি ধর্ষণ, ৬টি অপহরণ, ১১টি গোলাগুলির ঘটনা, ২৫টি চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত আছেন একটি সন্ত্রাসী বাহিনী। সন্ত্রাসীদের ভয়ে তিন ইউপির মানুষ অসহায়।  প্রায় ঘরে ঘরে রয়েছে অস্ত্র।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সন্তারাসীদের ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায়না। নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক চেয়ারম্যান জানান,তিন ইউপিতে এতো অস্ত্র আমার জন্মের পরেও দেখিনি। ভাই এদের ব্যাপারে কোন কথা বললে আমাকেও তারা হত্যা করবে এরা এতই খারাপ। হত্যা হামলা এদের জন্য কোন ব্যাপার না। সন্ত্রাসীদের  সাথে সব সময় অস্ত্র থাকে। গত ৭/৮ দিন আগে দেওটি বড় বাড়ির শাহ আলমের ঘরে চিহ্নিত সন্ত্রাসী শাহা অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। তার ভয়ে ইউপিতে কেউ মুখ খোলার সাহস পায়না।  দীর্ঘদিন থেকে  আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আমিশাপাড়া বাজারে ফয়েজ গ্র“প সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে আসছে। পার্শ্ববর্তী গ্রামে ডাকাতি প্রস্তুতির সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে যুবলীগ ক্যাডার ফয়েজকে আটক করা হয়। পরে শরীর চেক করার পর প্যান্টের বেল্টের সাথে থাকা একটি এলজি, দুই রাউন্ড গুলি ও দু’টি ছোরা উদ্ধার করা হয়।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হানিফুল ইসলাম, রাতে একদল ডাকাত ভদ্রগাঁও গ্রামের ডালাগো বাড়ী সংলগ্ন এলাকায় ডাকাতি প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ডাকাত সদস্য ফয়েজ উদ্দিনকে আটক করা হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, দুই রাউন্ড গুলি ও দু’টি ছোরা উদ্ধার করা হয়।  আটককৃত ডাকাত সদস্যের বিরুদ্ধে ডাকাতি প্রস্তুতির ঘটনায় একটি ও অস্ত্র আইনে আরো একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Related Post